1. jitsolution24@gmail.com : admin :
  2. support@wordpress.org : Support :
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০২:১৩ পূর্বাহ্ন

বিদেশী ঋণের সুদ পরিশোধে সরকারের ব্যয় বেড়েছে দ্বিগুন

বিশেষ প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : রবিবার, ৪ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪৭৩ Time View
ফাইল ছবি

২০১৪-১৫-অর্থবছরে সরকারের বিদেশী ঋণের সুদের হার ছিল ০.৭শতাংশ। ছয় বছরের ব্যবধানে ২০২০-২১ অর্থবছরে সেই সুদের হার দ্বিগুন হয়েছে। বিদেশ থেকে পাওয়া অনুদানের পরিমান কমে যাওয়ার কারণে সরকারের বিদেশী ঋণের সুদের হার বৃদ্ধি পেয়েছে। ভবিষ্যতে সুদহার আরও বৃদ্ধি পাবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে সরকারের দেশী-বিদেশী ঋণ পরিশোধে ব্যয় হবে ৬৩হাজার ৮০১ কোটি টাকা। একই অর্থবছরে বিদেশ থেকে ঋণ নেবে ৭৬ হাজার ৪ কোটি টাকা। এই ঋণের সুদ পরিশোধে ব্যয় হবে ১হাজার ১৯০ কোটি টাকা।

প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বিদেশী উৎস থেকে নেওয়া ঋণের সুদহার ছিল ০.৭শতাংশ, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ছিল ০. ৮ শতাংশ, ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে ছিল ১ দশমিক ৪ শতাংশ, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ছিল ১ দশমিক ২ শতাংশ এবং ২০১৯-২০ অর্থ বছরে ছিল ১ দশমিক ৪ শতাংশ।

চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে সরকারকে বিদেশী ঋণের সুদ পরিশোধ করতে হবে ১ দশমিক ৪ শতাংশ সুদে। ২০২১-২২ অর্থবছরে ১ দশমিক ৪শতাংশ  এবং ২০২২-২৩ অর্থ বছরে ১ দশমিক ৫ শতাংশ সুদ দিতে হবে বিদেশী ঋণে।

তবে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৪-১৫ অর্থ বছরের তুলনায় অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে নেওয়া ঋণের সুদ হার ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ২ দশমিক ৩ শতাংশ কমেছে।

২০১৪-১৫ অর্থ বছরের অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদহার ছিল ১০ দশমিক ৬শতাংশ, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ছিল ১০শতাংশ, ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে ছিল ৯ দশমিক ৩শতাংশ, ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে ছিল ৯ ধমিক ২শতাংশ, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ৯ দশমিক ৪শতাংশ এবং ২০১৯-২০ অর্থ বছরে ৯ দশমিক ৪শতাংশ।

প্রতিবেদন মতে ২০২০-২১ অর্থ বছরে অভ্যন্তরীন ঋণের সুদহার ৮ দশমিক ৬শতাংশ, ২০২১-২২ অর্থ বছরে ৬ দশমিক ৮শতাংশ, এবং ২০২২-২৩ অর্থ বছরে ৮দশমিক ৮শতাংশ।  সরকার বাজেটের ঘাটতি অর্থায়নের জন্য অভ্যন্তরীণ উৎস হতে ঋণ নিয়ে থাকে।

চলতি অর্থবছরসহ পরবর্তী তিন অর্থবছরে সরকার দেশী-বিদেশী ঋণের সুদ বাবদ ২ হাজার ২৫৬ দশমিক ৭ বিলিয়ন টাকা পরিশোধ করবে।  

এসব অর্থের মধ্যে ২০২০-২১ অর্থবছরে পরিশোধ করবে ৬৩৮ বিলিয়ন টাকা, ২০২১-২২ অর্থ বছরে ৭৪৮ দশমিক ৯ বিলিয়ন টাকা ও ২০২২-২৩ অর্থ বছরে পরিশোধ করতে হবে ৮৬৯ দশমিক ৮ বিলিয়ন টাকা।

প্রতিবেদনে দেখা গেছে, অভ্যন্তরীণ উৎস হতে নেওয়া ঋণের সুদ পরিশোধের জন্য চলতি অর্থ বছরের (২০২০-২১) জন্য ৫৮২ দশমিক ৫ বিলিয়ন টাকা, ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য ৬৮০ দশমিক ৮ বিলিয়ন টাকা এবং ২০২২-২৩ অর্থ বছরের জন্য ৭৮৮ দশমিক ৯ বিলিয়ন টাকা বরাদ্দ দেওয়া হবে।

বিদেশ থেকে নেওয়া ঋণের জন্য ২০২০-২১ অর্থ বছরে ৫৫ দশমিক ৩ বিলিয়ন টাকা, ২০২১-২২ অর্থ বছরের জন্য ৬৮ দশমিক ১ বিলিয়ন  টাকা এবং ২০২২-২৩ অর্থ বছরে ৮০ দশমিক ৯ বিলিয়ন টাকা সুদ পরিশোধ করতে হবে।

সরকার ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে ৩শ ৯ দশমিক ৭ বিলিয়ন টাকা, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ৩৩১ দশমিক ১ বিলিয়ন টাকা, ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে ৩৫৩ দশমিক ৮ বিলিয়ন টাকা, ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে ৪১৭ দশমিক ৭ বিলিয়ন টাকা, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ৪৯৪ দশমিক ৬ বিলিয়ন টাকা এবং ২০১৯-২০ অর্থ বছরে ৫৭৬ দশমিক ৬ বিলিয়ন টাকা পরিশোধ করেছে।

এসব অর্থের মধ্যে ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ পরিশোধ করা হয়েছে ২৯৪ দশমিক ৩ বিলিয়ন টাকা, বিদেশী ঋণের সুদ বাবদ পরিশোধ ১৫ দশমিক ৪ বিলিয়ন টাকা, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ বাবদ পরিশোধ করা হয়েছে ৩১৪ দশমিক ৭ বিলিয়ন টাকা এবং বিদেশী ঋণের সুদে গেছে ১৬ দশমিক ৪ বিলিয়ন টাকা। ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদে গেছে ৩৩৫ দশমিক ৪ বিলিয়ন টাকা এবং বিদেশী ঋণের সুদে গেছে ১৮ দশমিক ৪ বিলিয়ন টাকা। ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ পরিশোধে গেছে ৩৮১ দশমিক ৬ বিলিয়ন টাকা এবং বিদেশী ঋণের সুদ পরিশোধ করা হয়েছে ৩৬ দশমিক ১ বিলিয়ন টাকা। ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ বাদ পরিশোধ করা হয়েছে ৪৬০ ধমিক ১ বিলিয়ন টাকা এবং বিদেশী ঋণের সুদ বাবদ পরিশোধ করা হয়েছে ৩৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন টাকা। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ পরিশোধ করা হয়েছে ৫২৮ বিলিয়ন টাকা এবং বিদেশী ঋণের সুদ পরিশোধ করা হয়েছে ৪৮ দশমিক ৬ বিলিয়ন টাকা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022