ঢাকা || ২৪ জুন ২০২৪

পদত্যাগ করেছেন স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের এমডি হাবিবুর রহমান

পদত্যাগ করেছেন স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের এমডি হাবিবুর রহমান

ব্যাংক ইনফো

প্রকাশিত: ১০:০৬, ৯ মে ২০২৪

বেসরকারিখাতের শরীয়াহ ভিত্তিক স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. হাবিবুর রহমান পদত্যাগ করেছেন

গত বুধবার (৮ মে) তিনি ব্যাংকের পর্ষদের কাছে পদত্যাগ পত্র জমা দিয়েছেন।

বিষয়ে মো. হাবিবুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনও কথা বলতে রাজি হননি তিনি

ব্যবসায়ী নেতা এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি কাজী আকরাম উদ্দিন আহমদের গড়ে তোলা বেসরকারি ব্যাংক দীর্ঘদিন প্রচলিত ধারায় চললেও পরে ইসলামিক ধারার ব্যাংকিংয়ে রূপান্তরিত হয়

২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে পূর্ণাঙ্গ শরিয়াহভিত্তিক ব্যাংক হিসেবে কার্যক্রম শুরু করে তৃতীয় প্রজন্মের এই ব্যাংকটি

এই ব্যাংকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে মো. হাবিবুর রহমান যোগ দেন গত বছরের ফেব্রুয়ারি

এর আগে তিনি ইউনিয়ন ব্যাংক সাউথইস্ট ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এএমডি) এবং তার আগে এনসিসি ব্যাংক যমুনা ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন

এছাড়া দীর্ঘ ৩৩ বছরের কর্মজীবনে প্রাইম ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংক শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি

ব্যাংক এমডিদের সুরক্ষার জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে একটি নীতিমালা জারি করা হয় তাতে ব্যাংকের এমডিদের চাকরির অব্যাহতির ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে অনুমোদনের শর্ত জুড়ে দেওয়া হয়

এর আগেও গত দুই-আড়াই বছরে বেশ কয়েকটি ব্যাংকের এমডিকে পর্ষদের চাপে পদ ছাড়তে হয়েছে বিষয়টি নিয়ে ব্যাংকের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের মধ্যে অস্বস্তি কাজ করছে বলে মনে করেন ব্যাংক নির্বাহীরা

বিষয়ে অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশের (এবিবি) সাবেক চেয়ারম্যান মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের এমডি সৈয়দ মাহবুবুর রহমান বলেন, “কোনও ব্যাংক নির্বাহীই চান না তার অবসরের সময় আসার আগে চাকরি ছাড়তে অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় পর্ষদের সঙ্গে সব বিষয়ে ঐক্যমত না হওয়ায় চাকরি থেকে পদত্যাগ করতে হয়

তবে এখন কেন্দ্রীয় ব্যাংক একটি নীতিমালা করেছে এমডিদের সুরক্ষার জন্য সেই নীতিমালা অনুযায়ী সব কিছু খতিয়ে দেখে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যদি কোনও এমডিকে পুনর্বহাল করতে পারে তিনি হয়তো আবার চাকরিতে ফিরবেন যদি সম্ভব না হয় তাহলে তো চাকরি ছাড়তেই হবে